গঙ্গাচড়ায় ইউপি নির্বাচনে সদস্য পদে একই নামের ৩ প্রার্থী

0
33
গঙ্গাচড়ায় ইউপি নির্বাচনে সদস্য পদে একই নামের ৩ প্রার্থী

গঙ্গাচড়া( রংপুর) প্রতিনিধিঃ রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলায় ৪র্থ ধাপের আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তিন প্রার্থী’র শুধুমাত্র নামের মধ্যে মিল থাকায় ভোটারদের মাঝে দেখা দিয়েছে মিশ্রপ্রতিক্রিয়া ও উৎকন্ঠা।

জানা যায়, ৪ নং সদর গঙ্গাচড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে “আঃখালেক” নামের তিন প্রার্থী ১ নং ওয়ার্ড থেকে এবারের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য মনোনয়ন পত্র দাখিল করেন আর তাতেই বিপত্তিতে পড়েছে সাধারণ ভোটারগন।

তিন জন প্রার্থীর নামের মধ্যে মিল থাকায় সাধারণ ভোটারা কাকে নিয়ে আলোচনা করছেন তা বুঝার উপায় নেই। নিজেদের পছন্দের প্রার্থী’র কথা জিজ্ঞাসা করলে বলছে ভোট দিবো খালেক’কে । কোন খালেক তা কেউ মুখ খুলে বলতে চাচ্ছে না। ভোটাররা একপ্রকার ধাঁধাঁ’র মধ্যে রেখেছে প্রার্থীর পক্ষে সমর্থনকারী নির্বাচনে ভোট চাওয়া ব্যাক্তিদের।

তিন সদস্য খালেক প্রার্থীর মধ্যে দুজন ইতিপূর্বে একে অন্যের বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেছেন তবে এবারে নতুন মুখ আঃখালেক প্রার্থী যোগ হওয়ায় নির্বাচনের মাঠে সর্বত্র সবার মুখে মুখে একই আলোচনা। সঠিক খালেক প্রার্থীকে ভোট দিয়ে অভিভাবক নিশ্চিত করতে একপ্রকার হিমসিম খাচ্ছে ১ নং ওয়ার্ডের সাধারণ ভোটারগন।

মার্কা হাতে পাওয়ার পর থেকে সাধারণ ভোটার এরমধ্যেই নিজেদের দেয়া তিন জন আঃখালেক প্রার্থীর তিনটি নাম নির্ধারণ করে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। এর মধ্যে প্রথমজন, যিনি ২৪ বছর যাবত সুনামের সাথে নির্বাচিত হয়ে আসছে তাকে “পুরান খালেক” বা তার পূর্ব নির্বাচিত মার্কা পাখাঁ খালেক নাম দিয়ে প্রচারণা চালাতে দেখা গেছে।

তিনি এবারে (আপেল) মার্কা নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। দ্বিতীয়জন, ইতিপূর্বে টিউবয়েল মার্কা নিয়ে একবার নির্বাচিত হওয়ায় তাকে নতুন আঃখালেক হিসেবে অনেকেই চিনেন এবং তিনি দ্বিতীয় বারের মতো (টিউবয়েল) প্রতিক নিয়ে এবারেও প্রতিযোগিতা করছেন। তৃতীয় জনকে নয়া খালেক বা টেলিকম ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান থাকায় মোবাইল খালেক নাম দিয়ে তার সমর্থনকারীদের প্রচারণা চালাতে দেখা যাচ্ছে তিনি (ফুটবল) মার্কা নিয়ে এবারে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।

পুরুষ ভোটারদের মাঝে বিভ্রান্তি কিছুটা কম হলেও অন্দরমহলের মহিলা ভোটাররা পড়েছে বিপত্তিতে তারা বুঝে উঠতে পারছেনা কোন খালেকের সমর্থনকারী তাদের কাছে দোঁয়া চাচ্ছে।মার্কা নিয়ে তারা একপ্রকার গোলমাল পাকিয়ে ফেলছেন।রাস্তা কিম্বা গ্রামের মোড়ে গড়ে উঠা চাঁ’য়ের দোকানে ভোটারদের মাঝে তুমুল আলোচনা চলছে ৩ জন আঃখালেক দ্বয়দের নিয়ে । মোস্তা মিয়া,মোখলেছ,ছহির উদ্দিন,মোক্তার হোসেন,আলম,ছপর উদ্দিন,সহ শতাধিক ভোটারের কাছে তাদের পছন্দের প্রার্থীর কথা জানতে চাইলে তারা মার্কা উল্লেখ না করে এককথায় প্রকাশ করেন ভোট দিমো আঃখালেক’কে।

ভোটারদের ধোঁয়াশা কথাবার্তায় অপরাধ বার্তা’র প্রতিনিধি নিজেও একপর্যায়ে বিব্রত হয়ে পরে। প্রবীণ ভোটারগন অতীতের ভোটের মাঠ পর্যালোচনা করে বলছেন “পুড়ান চাল ভাতে বাড়ে” এক্ষেত্রে ২৪ বছরের প্রবীণ প্রার্থীর জয়ের সম্ভাবনা এবং তাকেই এগিয়ে রাখছেন অনেকেই। বাকি দুজনের দিকেও নতুন ভোটারদের আগ্রহ দেখা গেছে। তারণ্য নির্ভর ভোট হলে হিসেব নিকাশ ভিন্ন হওয়ার সম্ভাবনা দেখছেন অনেকেই।

তবে যে আঃখালেকেই বিজয়ী হোকনা কেন ধাঁধা’র উত্তর পেতে সামনে ১৩ দিন অপেক্ষা করতে হবে। আগামী ২৬’শে ডিসেম্বর গঙ্গাচড়া উপজেলার ৯টি ইউ’পিতে ভোট গ্রহন সম্পুর্ণ হবে। উপজেলার মধ্যে এই প্রথম এক ইউনিয়নে একই নামের তিন প্রার্থীদ্বয়। আর কে হচ্ছে ৪নং গঙ্গাচড়া সদর ইউনিয়ন পরিষদের সম্মানিত পুরুষ সদস্য ধাঁধা’র উত্তর পাওয়া যাবে ভোটারদের কাছ থেকে আগামী ২৬ ডিসেম্বর।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here