নামেই লাইব্রেরী বাস্তবে চিত্র ভিন্ন

0
7
নামেই লাইব্রেরী বাস্তবে চিত্র ভিন্ন

নামেই লাইব্রেরী বাস্তবে চিত্র ভিন্ন। ময়মনসিংহের মুক্তাগাছার অধিকাংশ উচ্চ বিদ্যালয়গুলোতে নেই লাইব্রেরী। যেকয়েকটি বিদ‍্যালয়ে লাইব্রেরী আছে। সেগুলোর অবস্থা জরাজীর্ণ। স্কুলের লাইব্রেরীতে বই থাকার কথা থাকলেও বই রয়েছে প্রধান শিক্ষকের অফিস কক্ষে ও আলমারিতে তালাবদ্ধ অবস্থায়।

এছাড়াও কোন কোন স্কুলের অফিস কক্ষ এবং বুক সেল্পে রাখা হয়েছে বই। নামে মাত্র এসব লাইব্রেরী থাকলেও কোন কার্যক্রম না থাকাই কাজে আসছে না লাইব্রেরী।

লাইব্ররীর কার্যক্রম না থাকাই লাইব্রেরীয়ানরা স্কুল আসা যাওয়ার মাধ্যমেই মাস পার করে বেতন তুলছেন। আর অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানের লাইব্রেরীয়ানরা স্কুলে পাঠদান করাছেন।

সরেজমিনে উপজেলার আর্মড পুলিশ ব‍্যাটালিয়ন স্কুলে গিয়ে দেখা যায়, নাম মাত্র লাইব্রেরী আছে কিন্তু লাইব্রেরীতে নাই কোন বুকসেল্প ও বই। বই রয়েছে প্রধান শিক্ষকের অফিস কক্ষে আর লাইব্রেরী বতর্মানে নামাজের ঘর হিসাবে ব‍্যবহার করা হচ্ছে। লাইব্রেরীর এমন চিত্র শুধুমাত্র আর্মড পুলিশ ব‍্যাটালিয়ান স্কুলেই নয়, এমন দৃশ্য মুক্তাগাছা আব্বাছিয়া কামিল মাদ্রাসা, মুক্তাগাছা আর.কে সরকারি উচ্চ বিদ‍্যালয় সহ উপজেলার অধিকাংশ স্কুল ও কলেজের।

এদিকে আব্বাছিয়া কামিল মাদ্রাসায় গিয়ে শিক্ষার্থীদের কাছে লাইব্ররী কোথায় এবং লাইব্রেরীর কার্যক্রম সম্পর্কে জানতে চাইলে, তারা বলেন কার্যক্রম আবার কেমন হবে! লাইব্রেরী কোথায় তাও জানিনা।

নামেই লাইব্রেরী বাস্তবে চিত্র ভিন্ন

অনেক খোঁজাখুঁজির পর দেখা গেলো লাইব্ররী কক্ষ তালাবদ্ধ আর কক্ষ খুলতেই দেখা গেলো জরাজীর্ণ কক্ষের বেহালদশার চিত্র। কিছু বই বুক সেল্পে আর বাকী বই ফ্লোরে এলোমেলো ভাবে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। দেখে মনে হবে লাইব্রেরী তো নয়,যেন পোকা মাকড়ের বসতঘর।

এ প্রসঙ্গে আর্মড পুলিশ ব‍্যাটালিয়ন স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো.বছীর উদ্দিন বলেন, সবেমাত্র সংস্কারের কাজ শেষ হয়েছে। যেকারণে বই ও বুক সেল্প আমার অফিসে রাখা আছে।

এছাড়াও কিছু স্কুলে লাইব্রেরি আছে কিন্তু সেখানে কোন শিক্ষার্থী যায় না। দীর্ঘদিন তালাবদ্ধ থাকায় ময়লা আবর্জনায় জরাজীর্ণ অবস্থায় অলস পড়ে আছে।

প্রায় সবগুলো স্কুলেই লাইব্রেরিয়ান আছে কিন্তু লাইব্রেরি নেই। লাইব্রেরিয়ানের কোন কাজ না থাকায় স্কুলে ক্লাস নিচ্ছেন। লাইব্রেরি না থাকায় শিক্ষার্থীরা বাড়তি কোন জ্ঞান অর্জনের সুযোগ পাচ্ছেনা।কাগজে কলমে এসব লাইব্রেরি থাকলেও বাস্তবে ভিন্ন চিত্র।

নামেই লাইব্রেরী বাস্তবে চিত্র ভিন্ন

এ ব্যাপারে মুক্তাগাছা আব্বাসিয়া কামিল মাদ্রাসার লাইব্রেরীয়ান মো.আবু তাহের বলেন, লাইব্ররী সবসময় চলমান থাকে। জনবল না থাকায় অনেক সময় বিভিন্ন শ্রেণীর ক্লাস নিতে হয়। সেকারণে কার্যক্রম পরিচালনা করতে ঝামেলায় পড়তে হচ্ছে। ক্লাস নেওয়ার কারণে লাইব্রেরী তালাবদ্ধ রাখা ছিল।

এ ব্যাপারে লেখক ও সাহিত্যিক সাইফুজ্জামান দুদু বলেন, স্কুলগুলোহে লাইব্রেরি থাকলেও শিক্ষার্থীদের মেধা মননশীল বিকাশে সহায়ক হিসেবে কাজ করে। তাই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলোর লাইব্রেরী সর্বদা সচল থাকা উচিত।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. শাহাদাত হোসেন বলেন, খুব শীগ্রই শিক্ষকদের নিয়ে মিটিং করে লাইব্রেরিগুলো সচল করার ব‍্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। যাতে করে শিক্ষার্থীরা যেনো লাইব্রেরী মুখি হয়।

নামেই লাইব্রেরী বাস্তবে চিত্র ভিন্ন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here