‘স্বপ্নবাজি’ নিয়ে বাজি ধরা প্রিয়ন্তী উর্বী

0
220
'স্বপ্নবাজি' নিয়ে বাজি ধরা প্রিয়ন্তী উর্বী

আফজালুর ফেরদৌস রুমনঃ বাংলাদেশের ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রির জানা-অজানা নানা গল্প নিয়ে প্রথমবারের মতো একটি চলচ্চিত্র নির্মান হচ্ছে। ডিজাইনার পিয়াল হোসেনের প্রযোজনায় সিনেমাটি পরিচালনা করছেন এই সময়ের অন্যতম দক্ষ পরিচালক রায়হান রাফি।

‘স্বপ্নবাজি’ নামের এই সিনেমাটি নাম ঘোষনার পর থেকেই আলোচনায়। সিয়াম আহমেদ,মাহিয়া মাহি, পিয়া জান্নাতুল,গোলাম কিবরিয়া তানভীর সহ একঝাক দক্ষ এবং মেধাবী তরুনদের সাথে এই সিনেমায় চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ-১৯ এর ৪র্থ রানারআপ প্রিয়ন্তী উর্বী। একজন নবাগতা হিসেবে ক্যারিয়ারের প্রথম সিনেমা হিসেবে ‘স্বপ্নবাজি’তে কাজ করার সুযোগ পাওয়াটা প্রিয়ন্তী উর্বীর কাছে তাই স্বপ্নের চেয়ে কোনো অংশে কম নয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্রী প্রিয়ন্তী কয়েকটি স্বপ্লদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের কাজ করলেও এবারই প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য সিনেমায় অভিনয় করতে যাচ্ছেন তিনি ।

মিডিয়াতে কাজ করার ইচ্ছাটা খুব ছোটবেলা থেকেই। ছোটবেলায় বলিউড অভিনেত্রী ঐশ্বরিয়া রাইয়ের এতটাই ভক্ত ছিলেন যে, পরীক্ষায় খাতায় তার নাম লিখতেন প্রিয়ন্তী ঐশ্বরিয়া উর্বী। প্রিয়ন্তী জানান, আসলে এতটাই পছন্দ করতাম তাকে যে তখন থেকেই নায়িকা হিসেবে তার মতোই একজন হতে চাইতাম। সেই চাওয়াটা আস্তে আস্তে সত্য করার জন্য নিজেকে তৈরী করেছেন তিনি।

মিডিয়াতে ছেলে-মেয়েরা একেকজন একেক জায়গা থেকে আসে। সেখানে রঙিন জীবনের স্বপ্নে বিভোর হয়ে সবাই বাজি ধরে । বাজিতে কেউ হারে, কেউ জেতে । এদেরই একজনের চরিত্রে ‘স্বপ্নবাজি’ সিনেমায় দেখা যাবে প্রিয়ন্তীকে। তাই সিনেমার গল্পের সাথে নিজের জীবন কিছুটা মিলেমিশে গেছে বলে মনে করেন প্রিয়ন্তী। তাই নিজের সেরাটা দেবার ক্ষেত্রে কোনো কমতি রাখতে চাচ্ছেন না প্রিয়ন্তী৷

মিডিয়াতে কাজ করার ইচ্ছাটা অনেকদিনের হলেও বাস্তবে মিডিয়াতে তার শুরুটা খুবই অল্প দিনের তাই সেভাবে উল্লেখ করার মত বা নিজের মনের মতো কাজ এখনো করে উঠতে পারেননি প্রিয়ন্তী। কিছু শর্টফিল্ম আর কয়েকটা টিভিসিতে কাজ করা হয়েছে যেগুলো মোটামুটি আলোচিত হয়েছে তবে একজন শিল্পী বা অভিনেত্রী হিসেবে নিজেকে তৃপ্ত করতে পারেননি প্রিয়ন্তী। তাই ‘স্বপ্নবাজি’ নিয়ে ধরা বাজিটা তার কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। নিজের দক্ষতা বা মেধা সেলুলয়েডে তুলে ধরার এই চান্স কোনভাবেই হারাতে চাননা প্রিয়ন্তী।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে প্রিয়ন্তী জানান, ‘স্বপ্নবাজি’ যেহেতু আমার প্রথম সিনেমা তাই আমি এর বাইরে আর কিছু নিয়ে ভাবছি না৷ আমি আমার পুরো সময়টাই আমার প্রথম সিনেমাকে দিতে চাই৷ আর সেভাবেই নিজেকে প্রস্তুত করেছি। আগে স্বল্পদৈর্ঘ্য সিনেমা, বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ফটোশ্যুট এবং বিজ্ঞাপনে কাজ করার অভিজ্ঞতা কিছুটা তো সাহায্য করছেই। অন্তত ক্যামেরার সামনে কাজ করার জড়তাটা এখন আসেনা। ‘স্বপ্নবাজি’ নিয়ে আমার প্রত্যাশা স্বপ্নের চেয়ে বড় তাই এখানে কোনো কম্প্রোমাইজ নাই।

বাংলাদেশে নিজের প্রিয় অভিনেতা-অভিনেত্রী কে বা কারা জানতে চাইলে প্রিয়ন্তী বলেন- আসলে নির্দিষ্ট করে এক দুইজনের নাম বলাটা খুবই বিব্রতকর আমার জন্য। তবে শহিদুজ্জামান সেলিম, অপি করিম, বিপাশা হায়াত উনাদের অভিনয় বা ব্যক্তিত্ব খুব ভালো লাগতো। নিজের পরিবার মানে বাবা, মা, বোনের কাছ থেকে মিডিয়াতে কাজের ব্যাপারে প্রথম থেকেই সমর্থন এবং সহযোগিতা পেয়ে আসছেন তিনি। এখন পর্যন্ত ক্যারিয়ারে এই পর্যন্ত আসার জন্য তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান প্রিয়ন্তী।

সামনে কাজের পাশাপাশি নিজের পড়াশোনাটা চালিয়ে যাবেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানতে চাইলে একটু হেসে তিনি জানান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের চতুর্থ বর্ষে আছি এখন৷ অনার্স, মাস্টার্স শেষ করার পর ভাববো আসলে কি করা যায়! সিনেমা করার জন্যই অপেক্ষা করছিলাম। ‘স্বপ্নবাজি’তে কাজের জন্য দেড় মাস ধরে নিজেকে প্রস্তুত করছি ।

মিস ওয়ার্ড বাংলাদেশ ২০১৯ শেষ হওয়ার মাসখানেক পর আমি এই সিনেমাতে অভিনয়ের প্রস্তাব পাই । স্ক্রিন টেস্টের পর নির্মাতার কাছ থেকে ইতিবাচক সাড়া পাই। এর পরেই স্ক্রিপ্ট দেন রাফি ভাইয়া । তিনি সব সময় নতুনদের নিয়ে কাজ করেন। তিনি আমার ওপর ভরসা করেছেন, এই জন্যে তার প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। তবে মিডিয়া বিমুখ অন্তত হচ্ছিনা একথা এখনই বলে দিতে পারি। এটিই আমার প্রথম চলচ্চিত্র । তাই স্বাভাবিকভাবেই আমি উচ্ছ্বসিত । তবে সেটা পূর্নতা পাবে যদি আমি আমার সর্বোচ্চ মেধা পুরো টিমকে দিতে পারি ৷ তাই আবেগে ভেসে না গিয়ে আপাতত এই সিনেমা নিয়েই ভাবছি।

এক কঠিন সময় পার করা আমাদের চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রি অচিরেই ফিরে পারে হারানো স্বর্নযুগ, সিনেমা দেখার জন্য দর্শক আবারো ফিরে আসবে প্রেক্ষাগৃহে এমন মনোভাব নিয়েই এই সময়ের কিছু তরুন কিন্তু মেধাবী মানুষ কাজ করে যাচ্ছেন অনবরত। সেই চেস্টা করে যাওয়া মানুষদের মধ্যে অনেকেই স্বপ্ন দেখছেন নিজেদের দক্ষতা এবং পরিশ্রম দিয়ে নিজেকে তুলে ধরতে পারবেন সবার সামনে। তাদের মধ্যে একটি নাম প্রিয়ন্তী উর্বী। শুভ কামনা রইলো এই নবাগতার জন্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here