শাবনূর এর জন্ম, বাসস্থান, পেশা, দাম্পত্য সঙ্গী, সন্তান

0
196
শাবনূর

শাবনূর (কাজী শারমিন নাহিদ নূপুর) (জন্ম: ১৭ ডিসেম্বর ১৯৭৯) হলেন একজন বাংলাদেশী চলচ্চিত্রে জনপ্রিয় অভিনেত্রী। শাবনূর ২০০৫ সালে মোস্তাফিজুর রহমান মানিক পরিচালিত দুই নয়নের আলো ছবিতে অভিনয় করে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন। তিনি তারকা জরিপে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র অভিনেত্রী বিভাগে ১০ বার মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার লাভ করেন।

তার পুরস্কারজয়ী চলচ্চিত্রসমূহ হল বুক ভরা ভালোবাসা (১৯৯৮), বিয়ের ফুল (১৯৯৯), এ বাঁধন যাবে না ছিঁড়ে (২০০০), শ্বশুর বাড়ী জিন্দাবাদ (২০০১), স্বামী স্ত্রীর যুদ্ধ (২০০২), ফুলের মত বউ (২০০৪), মোল্লা বাড়ীর বউ (২০০৫), আমার প্রাণের স্বামী (২০০৭), ১ টাকার বউ (২০০৮), বলবো কথা বাসর ঘরে (২০০৯)।

শাবনূর
শাবনূর
শাবনূরের ছবি
জন্ম
কাজী শারমিন নাহিদ নূপুর

১৭ ডিসেম্বর ১৯৭৯ (বয়স ৩৯)

যশোর, খুলনা, বাংলাদেশ
বাসস্থান ঢাকা, বাংলাদেশ
জাতীয়তা বাংলাদেশী
পেশা অভিনেত্রী
কার্যকাল ১৯৯৩–বর্তমান
উচ্চতা ৫ ফু ৩ ইঞ্চি (১.৬০ মি)
দাম্পত্য সঙ্গী অনিক মাহমুদ (বি. ২০১২)
সন্তান আইজান নেহান
পুরস্কার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (১ম বার)
মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার (১০ বার)
বাচসাস পুরস্কার ( ৩ বার)

প্রাথমিক জীবন


শাবনূর ১৯৭৯ সালের ১৭ ডিসেম্বর বাংলাদেশের যশোর জেলার শার্শা উপজেলার নাভারণে জন্মগ্রহণ করেন। পারিবারিক ভাবে তার নাম রাখা হয় কাজী শারমিন নাহিদ নুপুর। পরে স্বনামধন্য নির্মাতা এবং তার মেনটর এহতেশাম তার নাম রাখেন শাবনূর। শাবনূর শব্দের অর্থ রাতের আলো। শাবনূরের পিতার নাম শাহজাহান চৌধুরী। তিন ভাই বোনের মধ্যে সবচেয়ে বড় তিনি। বোন ঝুমুর এবং ভাই তমাল দুজনেই নিজ নিজ পরিবারসহ অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী।

পারিবারিক জীবন


২০১১ সালের ৬ ডিসেম্বর ব্যবসায়ী অনিক মাহমুদের সঙ্গে শাবনূরের আংটি বদল হয় এবং ২০১২ সালের ২৮ ডিসেম্বর তাকে বিয়ে করেন। তিনি অস্ট্রেলিয়ায় বসবাস শুরু করেন ও নাগরিকত্ব লাভ করেন। ২০১৩ সালের ২৯ ডিসেম্বর তিনি ১ম ছেলে সন্তানের মা হন। তার ছেলের নাম আইজান নিহান।

অভিনয় জীবন


প্রাথমিক কর্মজীবন: ১৯৯৩-২০০০

শাবনূরের প্রথম চলচ্চিত্র চাঁদনী রাতে ১৯৯৩ সালে মুক্তি পায়। ছবিটি পরিচালনা করেন এহতেশাম এবং তার বিপরীতে নায়ক ছিল সাব্বির। এই ছবিটি ব্যর্থ হয়। পরে চিত্র নায়ক সালমান শাহের সাথে জুটি বেধে ১৪টি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন যার প্রায় সবগুলোই ছিল ব্যবসায়িক মানদন্ডে সফল।

সালমান শাহ-শাবনূর জুটির প্রথম ছায়াছবি জহিরুল হক পরিচালিত তুমি আমার ১৯৯৪ সালে মুক্তি পায়। একই বছর শাহ আলম কিরণ তাদের নিয়ে ফারুক-কবরী জুটির সুজন সখী চলচ্চিত্রের রঙিন পুনঃনির্মাণ সুজন সখি নির্মাণ করেন।

১৯৯৫ সালে স্বপ্নের ঠিকানা, ১৯৯৬ সালে স্বপ্নের পৃথিবী, তোমাকে চাই, ১৯৯৭ সালে শিবলি সাদিক পরিচালিত আনন্দ অশ্রু এ জুটির উল্লেখযোগ্য ছবি। পরে তিনি নায়ক রিয়াজ এর বিপরীতে অভিনয় করে দারুন সফলতা অর্জন করেন। রিয়াজের বিপরীতে ১৯৯৭ সালে মন মানেনা ও তুমি শুধু তুমি এবং ১৯৯৯ সালে অভিনীত ভালবাসি তোমাকে ও বিয়ের ফুল ছায়াছবিগুলো ব্যবসা সফল হয়। পাশাপাশি তিনি অভিনেতা ফেরদৌসের সাথেও সফল হন।

এছাড়াও তিনি মান্না, শাকিব খানের সাথে অভিনয় করে সফল হয়েছেন। এসময়ে তিনি ভালবাসি তোমাকে চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে বাচসাস পুরস্কার লাভ করেন এবং ১৯৯৮ ও ১৯৯৯ সালের চলচ্চিত্রের জন্য পর্যন্ত টানা দুইবার তারকা জরিপে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র অভিনেত্রী বিভাগে মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার লাভ করেন।

জনপ্রিয়তা ও সাফল্য: ২০০০-২০০৯


২০০০ সালে শাবনূর রিয়াজের বিপরীতে মতিন রহমান পরিচালিত নারীর মন ও এ মন চায় যে..!, এফ আই মানিক পরিচালিত এ বাঁধন যাবেনা ছিঁড়ে, জাকির হোসেন রাজু পরিচালিত নিঃশ্বাসে তুমি বিশ্বাসে তুমি, সাঈদুর রহমান সাঈদ পরিচালিত এরই নাম দোস্তি, শাকিব খানের বিপরীতে এফ আই মানিক পরিচালিত ফুল নেবে না অশ্রু নেবে এবং ইস্পাহানি আরিফ জাহান পরিচালিত গোলাম চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন।

২০০১ সালে তিনি রিয়াজের বিপরীতে দেবাশীষ বিশ্বাস পরিচালিত হাস্যরসাত্মক-রোম্যান্সধর্মী শ্বশুরবাড়ী জিন্দাবাদ, গাজী মাহবুব পরিচালিত রোম্যান্সধর্মী প্রেমের তাজমহল, ও এফ আই মানিক পরিচালিত রোম্যান্সধর্মী স্বপ্নের বাসর চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। পরের বছর আমজাদ হোসেন পরিচালিত সুন্দরী বধূ, এফ আই মানিক পরিচালিত হৃদয়ের বন্ধন ও স্বামী স্ত্রীর যুদ্ধ, জাকির হোসেন রাজু পরিচালিত মিলন হবে কত দিনে ও ভালবাসা কারে কয়, শাহাদৎ হোসেন লিটন পরিচালিত ও প্রিয়া তুমি কোথায় এবং আজাদী হাসনাত ফিরোজ পরিচালিত সবার উপরে প্রেম চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন।

২০০০ থেকে ২০০২ সালের চলচ্চিত্রের জন্য তিনি টানা তিনবার যথাক্রমে ২০০০ সালের সকল চলচ্চিত্র, ২০০১ সালের শ্বশুরবাড়ী জিন্দাবাদ, এবং ২০০২ সালের স্বামী স্ত্রীর যুদ্ধ চলচ্চিত্রের জন্য তারকা জরিপে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র অভিনেত্রী বিভাগে মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার লাভ করেন।

২০০৩ সালে অভিনয় করেন মতিন রহমান পরিচালিত মাটির ফুল, এফ আই মানিক পরিচালিত দুই বধূ এক স্বামী, আমজাদ হোসেন পরিচালিত প্রাণের মানুষ, আজাদী হাসনাত ফিরোজ পরিচালিত বউ শাশুড়ীর যুদ্ধ, জিল্লুর রহমান পরিচালিত স্বপ্নের ভালবাসা, মহম্মদ হান্‌নান পরিচালিত নয়ন ভরা জল চলচ্চিত্রে। এ বছর বউ শাশুড়ীর যুদ্ধ ছবিতে বর্ষা চরিত্রে অভিনয়ের জন্য সেরা অভিনেত্রী হিসেবে বাচসাস পুরস্কার অর্জন করেন এবং দর্শক জরিপে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র অভিনেত্রীর জন্য মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার এর মনোনয়ন লাভ করেন।

২০০৪ সালে শাবনূর কাজী হায়াৎ পরিচালিত অপরাধ-নাট্যধর্মী অন্য মানুষ, মোস্তফা সরয়ার ফারুকী পরিচালিত হাস্যরসাত্মক-নাট্যধর্মী ব্যাচেলর, আজাদী হাসনাত ফিরোজ পরিচালিত ফুলের মত বউ, মিজানুর রহমান খান দীপু পরিচালিত যত প্রেম তত জ্বালা, শিল্পী চক্রবর্তী পরিচালিত তোমার জন্য পাগল চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। ফুলের মত বউ ছবিতে রুবী চরিত্রে অভিনয়ের জন্য ষষ্ঠবারের মত দর্শক জরিপে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র অভিনেত্রীর জন্য মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার লাভ করেন।

২০০৫ সালে তার অভিনীত চলচ্চিত্রের মধ্যে রয়েছে আমজাদ হোসেন পরিচালিত নাট্যধর্মী কাল সকালে, সালাউদ্দিন লাভলু পরিচালিত হাস্যরসাত্মক-নাট্যধর্মী মোল্লা বাড়ীর বউ, মোস্তাফিজুর রহমান মানিক পরিচালিত বিয়োগান্তক-নাট্যধর্মী দুই নয়নের আলো এবং রোম্যান্টিক আমার স্বপ্ন তুমি। দুই নয়নের আলো ছায়াছবিতে সেঁজুতি চরিত্রের অভিনয় করে অর্জন করেন প্রথমবারের মত শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার।

এছাড়া মোল্লা বাড়ীর বউ চলচ্চিত্রে পারুল চরিত্রে অভিনয়ের জন্য লাভ করেন দর্শক জরিপে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র অভিনেত্রীর জন্য মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার।

২০০৬ সালে শাবনূর খ্যাতনামা কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ রচিত উপন্যাস জনম জনম অবলম্বনে নির্মিত নিরন্তর ছায়াছবিতে অভিনয় করেন। আবু সাইয়ীদ পরিচালিত এই ছবিতে তিথি চরিত্রে তার অভিনয় সমালোচকদের প্রশংসা লাভ করে।

২০০৭ সালের ঈদে মুক্তি পায় মালেক বিশ্বাস পরিচালিত মেয়ে সাক্ষী, মহম্মদ হান্‌নান পরিচালিত ভালবাসা ভালবাসা, এবং পি এ কাজল পরিচালিত আমার প্রাণের স্বামী।

২০০৮ সালে পি এ কাজলের রোম্যান্টিকধর্মী ১ টাকার বউ ছবিতে অভিনয় করেন। এতে তার সহশিল্পী ছিল শাকিব খান ও রুমানা খান।

২০০৯ সালে রিয়াজের বিপরীতে মনতাজুর রহমান আকবর পরিচালিত তুমি আমার স্বামী, এটিএম শামসুজ্জামান পরিচালিত এবাদত ও আব্দুল মান্নান পরিচালিত মন বসে না পড়ার টেবিলে এবং শাকিব খানের বিপরীতে পি এ কাজল পরিচালিত স্বামী স্ত্রীর ওয়াদা ও শাহ মোঃ সংগ্রাম পরিচালিত বলবো কথা বাসর ঘরে ছবিতে অভিনয় করেন।

২০০৭ থেকে ২০০৯ এই তিন বছর যথাক্রমে আমার প্রাণের স্বামী (২০০৭), ১ টাকার বউ (২০০৮) ও বলবো কথা বাসর ঘরে (২০০৯) ছায়াছবির জন্য টানা তিনবার দর্শক জরিপে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র অভিনেত্রীর জন্য মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার জিতে নেন।

পুরস্কার ও সম্মাননা


  • জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার
    • বিজয়ী: শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী – দুই নয়নের আলো (২০০৫)
  • বাচসাস পুরস্কার
    • বিজয়ী: শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী – ১৯৯৯, ২০০৩
  • মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার
    • বিজয়ী: শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র অভিনেত্রী – ১৯৯৮, ১৯৯৯, ২০০০, ২০০১, ২০০২, ২০০৪, ২০০৫, ২০০৭, ২০০৮, ২০০৯
    • বিজয়ী: শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র অভিনেত্রী – ২০০৩, ২০০৬, ২০১০

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here