মে দিবস: ইতিহাস ও প্রাসঙ্গিকতা

0
63
মে দিবস: ইতিহাস ও প্রাসঙ্গিকতা

মে দিবস: ইতিহাস ও প্রাসঙ্গিকতা। সভ্যতার উষালগ্ন থেকেই কর্ম বিভাজন শুরু হল। এক শ্রেণি কৃষিকাজে নিয়োজিত শ্রমিক ও অপর শ্রেণি ভূস্বামী বা জমির মালিক। ধীরে ধীরে সমাজে তৈরি হয়ে গেল শ্রেণি বৈষম্য। কিছু সুবিধাভোগী মানুষ এটা বেশ বুঝে গেলেন, বিনা পরিশ্রমে কেবল বুদ্ধি খাটিয়ে অপরের শ্রমের উপরে নির্ভর করে দিব্যি সুখে থাকা যায়। এই ধারণা থেকেই পরবর্তী কালে বিশেষত প্রাচীন মিশরীয় সভ্যতায় দাসপ্রথা গড়ে উঠেছিল।

ক্রমশ বিজ্ঞানের উন্নতির সঙ্গে সঙ্গে প্রথমে উন্নত ও পরে স্বল্পোন্নত দেশগুলিতে কলকারখানা গড়ে উঠল। সেই সব জায়গায় রুটিরুজির জন্য বহু শ্রমিক নিয়োজিত হলেন। বহু দশক জুড়ে এ ধরনের শ্রমিকদের নির্দিষ্ট শ্রমদিবস ছিল না। মালিকের প্রয়োজন অনুযায়ী, তাঁদের কাজ করতে হত। দৈনন্দিন চাহিদার তুলনায় পারিশ্রমিক ছিল নগণ্য। উনবিংশ শতকের শেষার্ধে এ ধরনের শ্রমজীবী মানুষেরা প্রাণের দায়ে ক্রমশ একত্রিত হতে থাকলেন। দীর্ঘদিনের পুঞ্জীভূত ক্ষোভ দানা বাঁধতে বাঁধতে ধীরে ধীরে শ্রমজীবী মানুষের সংগঠন বাড়তে থাকল। আমেরিকায় শ্রমিকদের মধ্যে থেকে গড়ে উঠল সমাজবাদী, বামপন্থী, ট্রেড ইউনিয়ন, ক্লাব ইত্যাদি।

এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, উত্তর গোলার্ধে মে মাসের প্রথম দিবসটি উদ্‌যাপিত হত ‘বসন্ত আবাহন দিবস’ উপলক্ষে। যার মধ্যে এই ব্যঞ্জনা নিহিত ছিল যে, অন্ধকারাচ্ছন্ন তীব্র শীতের অবসানে একটু উষ্ণতার উৎসব। বিশেষত, কৃষিজীবী ও শ্রমজীবী মানুষদের কাছে বসন্তের আগমন ছিল ঈশ্বরের আগমনের মতো। যাঁরা প্রাসাদ বা দুর্গে বসবাসের সুযোগ থেকে বঞ্চিত ছিলেন এবং নিতান্ত কুটিরে বসবাস করতেন, এটা ছিল তাঁদের কাছে এক পরম পাওয়া।

পক্ষান্তরে দক্ষিণ গোলার্ধে এর বিপরীত অর্থাৎ, গ্রীষ্মের অবসানে শীতের আবাহন হিসেবে ‘মে দিবস’ পালিত হতো। কিন্তু মে দিবস একটি রাজনৈতিক সংগ্রামে পরিণত হল বিশেষত, আমেরিকার সংগ্রামী শ্রমজীবী মানুষের কাছে ১৮৮৬ খ্রিস্টাব্দে যে দিন শ্রমিকেরা সঙ্ঘবদ্ধ ভাবে মহামিছিল সংগঠিত করেছিলেন আমেরিকার শিকাগো শহরের হে মার্কেট স্কোয়ারে। দাবি ছিল, শ্রমিকদের আট ঘণ্টা কাজ, আট ঘণ্টা বিশ্রাম ও বাকি আট ঘণ্টা খেলাধুলোর সুযোগ করে দেওয়া। এই দাবি স্বাভাবিক ভাবেই পুঁজিপতিদের আঘাত করল। যাঁরা এতকাল শ্রমিকদের সব

রকমের চাওয়া-পাওয়া থেকে বঞ্চিত করে এসেছিলেন।

প্রতিটি বিপ্লবেরই প্রতি-বিপ্লব থাকে। সুতরাং, ওই নিরীহ মিছিলের উপর বর্বরোচিত আক্রমণ নেমে আসে। পুঁজিপতি শ্রেণি স্থির করেছিল যে ভাবে হোক এই শ্রমিক নেতাদের দমন করতেই হবে, যাতে গণশ্রম আন্দোলন ফের মাথা তুলে দাঁড়াতে না পারে। ফলস্বরূপ, ১৮৮৬ সালের ১ মে থেকে শুরু হওয়া শ্রমিক ধর্মঘটে সামিল হন। তার প্রতিক্রিয়ায় নিরস্ত্র মানুষের উপরে গুলি চালানো হয়। পুলিশের গুলিতে শ্রমিকদের কয়েক জন মারা যান। বহু শ্রমিক আহত হন। অনেক শ্রমিক কারাবরণ করেন এবং পরের বছর শিকাগোর এক শ্রমিক নেতার ফাঁসি হয়। ১৮৯০ খ্রিস্টাব্দে ১ মে ফের আমেরিকায় দেশব্যাপী শ্রমিক ধর্মঘট আহূত হয়। সেই থেকে প্রায় পৃথিবী ব্যাপী ‘মে দিবস’কে শ্রমদিবস হিসেবে পালনের রীতির সূত্রপাত। বিশ্বের প্রায় ৮০টি দেশে ‘মে দিবস’কে শ্রম দিবস হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। ভারতবর্ষে চেন্নাই শহরের মেরিনা বিচে ১৯২৩ সালে প্রথম ‘মে দিবস’ পালিত হয়।

বর্তমানে ‘মে দিবস’ আরও পাঁচটা প্রচলিত উৎসবের মতো হয়ে দাঁড়িয়েছে। শ্রমিক, কৃষক, সাধারণ মানুষদের আর্থিক ও অন্য সহায়তা দানের কাজ বহু দিন আগেই করে গিয়েছেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। অবিভক্ত বাংলার শিলাইদহে জমিদারি দেখাশোনার ফাঁকে তিনি গ্রামের দুঃস্থ, অসহায়, খেতমজুর, শ্রমজীবী মানুষদের পাশে দাঁড়িয়ে বহু সামাজিক কাজ করেছিলেন। দরিদ্র মানুষের জন্য সমবায় ব্যাঙ্ক, কৃষিঋণের ব্যবস্থা, সামান্য খরচে স্বাস্থ্য পরিষেবা দেওয়ার উদ্দেশে হোমিওপ্যাথি চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছিলেন। সাম্প্রতিক কালে সেই কাজের ধারাকে ‘বীজমন্ত্র’ হিসেবে গ্রহণ করে ‘মাইক্রোফিনান্স’ চালু করে অধুনা বাংলাদেশে এক ব্যাপক কর্মক্ষেত্র গড়ে তুলেছিলেন মহম্মদ ইউনুস, যার ফলস্বরূপ তিনি নোবেল পুরস্কারে ভূষিত হন।

শ্রেণিহীন সমাজের কথা কেবল বামপন্থীরা বলেছেন এমনটা নয়। আজ থেকে পাঁচশ বছর আগে শ্রীচৈতন্য ধর্মীয় ভাব আন্দোলনের মাধ্যমে সাম্যবাদের প্রচার করে গিয়েছেন। রামকৃষ্ণ ভাব আন্দোলনের পুরোধা স্বামী বিবেকানন্দ শ্রেণি-ধর্ম-বর্ণ সকল প্রকার ভেদাভেদ দূর করার জন্য আমৃত্যু কাজ করে গিয়েছেন। কিন্তু প্রশ্ন জাগে, ধরিত্রী কি আজও প্রকৃত সাম্য লাভ করেছে? এখনও পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে শিশু, নারী শ্রমিক, কৃষকদের কী চরম অবমাননার শিকার হতে হয়। ভারতের আনাচেকানাচে নজর ফেললেই শিশু-শ্রমিকের দেখা মেলে।

অবিভক্ত সোভিয়েত দেশে শ্রমের যথাযথ মর্যাদা দিয়ে সাম্যবাদ প্রতিষ্ঠার চেষ্টাও বেশি দিন সফল হয়নি। সোভিয়েত দেশগুলি খণ্ড খণ্ড হয়ে পড়েছে। কাজেই জোর করে সাম্য বা অসাম্য কোনওটাই চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত রূপে ধরে রাখা সম্বভ নয়। এটাই বাস্তব। তারই মধ্যে ভারতের প্রাচীন ঐতিহ্যকে সামনে ধরে ধর্ম-বর্ণ-লিঙ্গ ভেদাভেদ মুক্ত সমাজের কল্পনা করেন বহু মানুষ। তাই মানুষ

আজও ‘মে দিবস’ উদ্‌যাপনে এগিয়ে আসেন।

মে দিবসে বঙ্গবন্ধু

মে দিবস, ১৯৫৪। মার্চ মাসের প্রথমদিকে পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদ নির্বাচনে যুক্তফ্রন্ট বিপুল বিজয় অর্জন করেছে। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠায় নেতৃত্ব প্রদানকারী দল মুসলিম লীগ শোচনীয়ভাবে পরাজিত হয়। শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হক মুখ্যমন্ত্রী। যুক্তফ্রন্টের প্রধান শরিক দল আওয়ামী লীগ। প্রাদেশিক পরিষদে এ দলের সদস্যসংখ্যা শেরে বাংলার কৃষক শ্রমিক পার্টির প্রায় তিন গুণ।

এ সময়ে এসেছিল মে দিবস, শ্রমিকদের আন্তর্জাতিক সংহতি দিবস। তরুণ নেতা শেখ মুজিবুর রহমান, বয়স ৩৪ বছর। তিনি দলের পূর্ব পাকিস্তান শাখার সাধারণ সম্পাদক। সভাপতি মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী। নির্বাচনি প্রচার অভিযানকালে মওলানা ভাসানী, শেরে বাংলা এবং পাকিস্তান আওয়ামী লীগপ্রধান হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর সঙ্গে তরুণ নেতা শেখ মুজিবুর রহমানের নাম প্রায় একসঙ্গে উচ্চারিত হতো। পূর্ব পাকিস্তান পরিষদ নির্বাচনে তিনি গোপালগঞ্জের একটি আসন থেকে নির্বাচিত হন।

সে সময় মে দিবস পালনে বামপন্থি শ্রমিক সংগঠনগুলো অগ্রণী ভূমিকা গ্রহণ করত। আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন। এ দল গঠনের উদ্যোক্তাদের বেশিরভাগ এসেছেন মুসলিম লীগ থেকে। কিন্তু ১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্ট পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর পরই তাদের মোহভঙ্গ ঘটতে শুরু করে। মুসলিম লীগ বাঙালিদের স্বার্থের বিরুদ্ধে অবস্থান গ্রহণ করে।

তারা বাংলা ভাষার পরিবর্তে উর্দু চাপিয়ে দিতে চায়। পশ্চিম পাকিস্তানকেন্দ্রিক মুসলিম লীগ নেতৃত্ব ও সরকারের কাজে স্পষ্ট হতে থাকে- বাঙালিদের অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিকভাবে পদানত রাখতে তারা সম্ভাব্য সবকিছু করবে। আওয়ামী লীগ এপথে বাধার প্রাচীর হয়ে উঠতে থাকে। তারা পরিণত হয় সব শ্রেণি-পেশার বাঙালির বিকাশের স্বার্থে আপসহীন দল। লক্ষ্য অর্জনে দলটি মধ্যবিত্ত জনগোষ্ঠীর পাশাপাশি কৃষক ও শ্রমিকদের মধ্যে কাজ করতে শুরু করে।

ছাত্রদের মধ্যেও প্রভাব ছিল উল্লেখযোগ্য। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার মাত্র সাড়ে চার মাসের মধ্যে ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি প্রতিষ্ঠিত ছাত্রলীগ ১৯৪৮ সালের মার্চে এবং ১৯৫২ সালের ফেব্রুয়ারির ভাষা আন্দোলনে ছিল সামনের সারিতে।

১৯৫৪ সালের ১ মে যুক্তফ্রন্ট ক্ষমতায়। সে সময় এ ভূখণ্ডে শিল্পকারখানা খুব একটা ছিল না। শ্রমিক সংখ্যা ছিল কম। কিন্তু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালির স্বার্থ আদায়ের সংগ্রামে শ্রমিকদের সংগঠিত করার গুরুত্ব উপলব্ধি করেন।

যুক্তফ্রন্ট সরকার ক্ষমতায় আসার পর শ্রমিকদের সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে, এটাও তিনি মনে করতেন না। এ জন্য তাদের দাবি সামনে আনতে হবে। ১ মে শ্রমিকদের সবচেয়ে বড় জমায়েতের এলাকা আদমজী নগরের শ্রমিক সমাবেশে তার অংশগ্রহণ ছিল এ উপলব্ধির ফল।

‘সিক্রেট ডকুমেন্টস অব ইন্টালিজেন্স অন ফাদার অব দি নেশন শেখ মুজিবুর রহমান’-এর চতুর্থ খণ্ডে আমরা ২ মে’র একটি প্রতিবেদন দেখতে পাই। শিরোনাম ছিল- মে দিবসের তাৎপর্য ও শ্রমিকদের মুক্তির জন্য আওয়ামী লীগের অঙ্গীকার বিষয়ে নারায়ণগঞ্জের সমাবেশে শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণ। প্রতিবেদনে বলা হয়, শেখ মুজিবুর রহমান-এমএলএ মে দিবস উদযাপনের তাৎপর্য তুলে ধরে ১৮৮৬ সালে শ্রমিকরা যেজন্য আত্মাহুতি দিয়েছে তা হাসিলে সংগঠিত আন্দোলনের ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন।

১৯৫২ সালের শেষদিকে শান্তি সম্মেলন উপলক্ষে সমাজতান্ত্রিক দেশ চীন সফরের উল্লেখ করে তিনি বলেন, চীনের শ্রমিকদের সঙ্গে পূর্ব পাকিস্তানের শ্রমিকদের জীবনের অনেক পার্থক্য। পূর্ব পাকিস্তানের শ্রমিকদের জীবনে দুঃখকষ্টের শেষ নেই। আওয়ামী লীগ শ্রমিকদের মুক্তির জন্য যেকোনো আত্মত্যাগে প্রস্তুত।

গোয়েন্দা প্রতিবেদনে বলা হয়, শেখ মুজিবুর রহমান শত্রুর চরদের চক্রান্তের বিরুদ্ধে সতর্ক থাকার জন্য শ্রমিকদের প্রতি আহ্বান জানান। [পৃষ্ঠা ২১-২২]

এই গোয়েন্দা প্রতিবেদনে বলা হয়, শেখ মুজিবুর রহমান ২৮ এপ্রিল ইস্ট বেঙ্গল প্রেস শ্রমিকদের সমাবেশে বক্তব্য রাখেন। তিনি শ্রমিকদের ইউনিয়নের পতাকাতলে সংগঠিত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, যুক্তফ্রন্ট সরকার ও আওয়ামী লীগ তাদের দাবি-দাওয়া পূরণে সম্ভাব্য সবকিছু করবে।

১৯৫৪ সালের ৩০ মে বঙ্গবন্ধু শেরে বাংলার মন্ত্রিসভায় যোগদান করেন। কিন্তু সেই রাতেই আদমজী জুটমিলে বাঙালি ও অবাঙালি শ্রমিকদের মধ্যে ভয়াবহ দাঙ্গা বাঁধানো হয়। এটা ছিল যুক্তফ্রন্ট সরকারকে ভেঙে দেয়ার সুগভীর চক্রান্তের অংশ। সে সময়ের লাটভবনে শপথ গ্রহণ শেষ হতে না হতেই আদমজীতে দাঙ্গার খবর আসে। বঙ্গবন্ধু মুহূর্ত দেরি না করে সেখানে চলে যান। তিনি জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সংঘর্ষের এলাকায় পৌঁছান এবং পরিস্থিতি শান্ত করায় সক্রিয় ভূমিকা রাখেন। গভীর রাতে ঢাকায় ফিরে তিনি অবাঙালি অধ্যুষিত বিভিন্ন এলাকা সফর করেন। আদমজীর ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় ঢাকায় যেন সাম্প্রদায়িক সহিংসতা সৃষ্টি না হয়, সে বিষয়ে তিনি সচেতন ছিলেন।

১৯৬৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের শুরুতে তিনি স্বায়ত্তশাসেন ৬ দফা দাবি উত্থাপন করেন। এ দাবি আদায়ে শ্রমিকদের ভূমিকার গুরুত্ব তিনি উপলব্ধি করতে পারেন। শ্রমিক এলাকাগুলোতে তিনি বড় বড় জনসভা করেন। এ বছরের ৮ মে গভীর রাতে তাকে গ্রেপ্তার করে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়। সেদিন বিকেলে তিনি নারায়ণগঞ্জে বিশাল সমাবেশে ভাষণ দিয়েছিলেন। এই সমাবেশে সবচেয়ে বেশি শ্রমিক এসেছিল আদমজী ও ডেমরা শ্রমিক এলাকা থেকে।

বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা দায়ের করা হলে ছাত্রদের পাশাপাশি শ্রমিকরাও প্রতিবাদে গর্জে ওঠে। তিনি শ্রমিকদের এ ভূমিকা কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করেছেন।

১৯৬৯ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি এ মামলা থেকে মুক্তিলাভের পর তিনি পূর্ব পাকিস্তানের বিভিন্ন এলাকা সফরের কর্মসূচি ঘোষণা করেন। এর প্রথমটি ছিল আদমজী নগর এলাকায় এবং সেটাই ছিল স্বাভাবিক।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে শ্রমিকদের ভূমিকা ছিল অনন্য। বিপুলসংখ্যক শ্রমিক মুক্তিযুদ্ধে সরাসরি অংশগ্রহণ করে। স্বাধীন দেশে শ্রমিকরা বাঁচার মতো মজুরি ও অন্যান্য সুবিধা পাবে, এটা বঙ্গবন্ধু চেয়েছেন। তবে তার মূল লক্ষ্য ছিল শোষণ-বঞ্চনার অবসান। তিনি সমাজতন্ত্রকে রাষ্ট্রীয় চার মূলনীতির অন্যতম হিসেবে ঘোষণা করেন।

১৯৭২ সালের ১ মে তিনি জাতির উদ্দেশে ভাষণ প্রদান করেন। তিনি ভাষণে বলেন-

“আমরা বিধ্বস্ত অর্থনীতিকে সমাজতান্ত্রিক ভিত্তিতে গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। অতীতে কতিপয় সুবিধাভোগী দেশের সমুদয় সম্পদের সিংহভাগ ভোগ করত। বর্তমান ব্যবস্থার চূড়ান্ত পর্যায়ে কৃষক, শ্রমিক, দরিদ্র ও বঞ্চিত লোকেরা উপকৃত হবেন। এই জন্যই সরকারের ওপর অত্যন্ত গুরুভার সত্ত্বেও আমরা চলতি বৎসরের ২৬ মার্চ আমাদের অর্থনীতির কতিপয় গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ যেমন ব্যাংক-বীমা, সমগ্র পাট, বস্ত্র ও চিনি শিল্প, অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন ও বৈদেশিক বণিজ্যসহ শিল্প কারখানার একটি বিরাট অংশ জাতীয়করণ করেছি। পুরাতন পুঁজিবাদী পদ্ধতির স্থলে সমাজতান্ত্রিক পদ্ধতি কায়েমের পথে এটা একটা দুঃসাহসিক পদক্ষেপ। নির্দিষ্ট লক্ষ্য নিয়ে আমরা এগিয়ে চলেছি। সমাজতান্ত্রিক অর্থনীতি পুরোপুরিভাবে গড়ে তোলার কাজ আমাদের সামনে পড়ে রয়েছে। এখানেই শ্রমজীবীদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে।”

বাংলাদেশের অর্থনীতি গত পঞ্চাশ বছরে দৃঢ়ভিত্তি পেতে শুরু করেছে। কিন্তু বৈষম্য দূর হয়নি। বরং প্রযুক্তির বিকাশ যত ঘটছে, অর্থনৈতিক বৈষম্য তত যেন প্রকট হচ্ছে। মুষ্টিমেয় লোকের হাতে জমা পড়ছে বিপুল সম্পদ। তাদের নিয়ন্ত্রণে শুধু অর্থনীতি নয়, রাজনীতিও। এ পরিস্থিতির পরিবর্তনের জন্য, শ্রমজীবী জনগণের স্বার্থ যথাযথভাবে পূরণের জন্য সংগঠিত ভূমিকার প্রয়োজন এখন আগের যেকোনো সময়ের তুলনায় অনেক বেশি। বাংলাদেশে শ্রমিক সংখ্যা বাড়ছে। সংগঠিত শিল্পখাতের ছোট-বড় নানা প্রতিষ্ঠানে প্রায় এক কোটি শ্রমিক কাজ করছে। তারা নিজেদের মুক্তির জন্য ঐক্যবদ্ধ ও সংগঠিত সংগ্রাম গড়ে তুলবে, এটাই মে দিবসের প্রত্যাশা। লেখক: মুক্তিযোদ্ধা-কলাম লেখক, সাংবাদিকতায় একুশে পদকপ্রাপ্ত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here